Last Update

Thursday, December 3, 2015

‘শুধু মুস্তাফিজের নয় গোটা বাংলাদেশের অর্জন’

সুখবরটা প্রথম শুনেছিলেন ঢাকা ডায়নামাইটসের ম্যানেজার আতাহার আলী খানের কাছে। তার একটু পরই ঢাকা ও কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের ম্যাচ শুরু হয়ে যায়। বাংলাদেশের প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে মুস্তাফিজুর রহমান আইসিসির বর্ষসেরা ওয়ানডে দলে জায়গা পেয়েছেন। খেলোয়াড়, কোচ থেকে শুরু করে সবাই অভিনন্দের জোয়ারে ভাসিয়েছেন ঢাকা ডায়ানামাইটসের এ তরুণ পেসারকে। দেশের প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে এ অর্জনের কথা শুনে দারুণ খুশি হয়েছেন ২০ বছর বয়সী মুস্তাফিজ। ক্যারিয়ারের শুরু থেকে যে বিস্ময়ের পসরা সাজিয়ে বসেছেন তাতে এ অর্জনে খুব বেশি অবাক হওয়ার কিছু নেই। বর্ষসেরার বিবেচনায় নেয়া হয়েছে ২০১৪ সালের ১৮ সেপ্টেম্বর থেকে এ বছরের ১৩ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত পারফরম্যান্স। মুস্তাফিজুরের ওয়ানডে অভিষেক হয়েছে ১৮ জুন ২০১৫। চার মাসেরও কম সময়ের পারফরম্যান্সে বর্ষসেরা একাদশে! আসল চমক এখানেই। কাল ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে মুস্তাফিজ বলেন, ‘আমি ওই সময় (খবরটা যখন শোনেন) মাঠে ছিলাম। প্রথমে সবাই অভিনন্দন জানিয়েছে। পরে জানলাম আমি আইসিসির ১১ জনের দলে (বর্ষসেরা একাদশ) আছি। ওই সময় আমার খুবই ভালো লেগেছে। আমার দেশ থেকে আমিই প্রথম।’ বাংলাদেশের ওয়ানডে ও টি ২০ অধিনায়ক মাশারাফি মুর্তজা মনে করছেন, এটা শুধু মুস্তাফিজের নয়, গোটা বাংলাদেশেরই অর্জন। ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে কুমিল্লা অধিনায়ক বলেন, ‘আপনারা প্রশ্ন না করলেও আমি তার কথা বলতাম। এটা আমাদের সবার জন্য বড় একটি অর্জন। আশা করছি, সে এ সাফল্য ধরে রাখবে।
একসময় টেস্ট দলেও (বর্ষসেরা দল) জায়গা করে নেবে। এত অল্প বয়সে এত তরুণ একজন ক্রিকেটার এত বড় একটি জায়গায় সুযোগ পেয়েছে, এটা পুরো বাংলাদেশের জন্য গর্বের বিষয়।’ মাশরাফির অনুরোধ, মুস্তাফিজের ওপর যেন প্রত্যাশার চাপ তৈরি করা না হয়, ‘এত কম বয়সে সে যা অর্জন করেছে আমরাও এতটা আশা করিনি। শুধু আইসিসি দলে সুযোগ পাওয়া নয়, সে পুরো দলের ভরসাম্যে বড় প্রভাব রেখেছে। এখন তার সঙ্গে নতুন প্রাপ্তি যোগ হল। ওর সাফল্যে দেশের সবাই গর্বিত হবে। আশা করব, এ অর্জনের ফলে ওর ওপর যেন বাড়তি চাপ তৈরি করা না হয়। খেলায় খারাপ সময় আসতেই পারে। দু-একটা ম্যাচ খারাপ করলে তার ওপর যেন মানসিক চাপ তৈরি করা না হয়। এগুলো বাইরে থেকে আমাদের করতে হবে। সে এখনও অনেক তরুণ। সে যদি বাংলাদেশকে আরও দশ-পনেরো বছর সেবা দিতে পারে তাহলে ও এমন জায়গায় যাবে যেখান আগে কেউ যেতে পারেনি।’ এদিকে বিপিএলের ম্যাচে কাল প্রতিপক্ষ অধিনায়ক মাশরাফির সঙ্গে মাঠে কথা হয়েছে কিনা জানতে চাইলে যুগান্তরকে মুস্তাফিজুর বলেন, ‘কথা হয়েছে, অভিনন্দন জানিয়েছেন কিন্তু ম্যাচ চলছিল বলে বেশি কিছু বলেননি।’ এত অল্প সময়ের সাফল্য কীভাবে দেখছেন জানতে চাইলে মুস্তাফিজ বলেন, ‘ওইভাবে আমি চিন্তা করি না। প্রথমে যখন সুযোগ দেয়া হয়েছে, শুধু ভালো খেলার চিন্তা ছিল। সৃষ্টিকর্তা আমাকে দিয়েছেন এ জন্য...। এমন অর্জনে খুশি হওয়ারই কথা। ওয়ানডেতে আমি সেরা ১১ জনের মধ্যে। আর ওখানে কত বড় বড় খেলোয়াড় আছেন। ছোট হিসেবে আমি আছি, এজন্য বেশি ভালো লাগছে।’ এদিকে ঢাকা ডায়নামাইটসের অধিনায়ক কুমার সাঙ্গাকারা মুস্তাফিজের বোলিংয়ের প্রশংসা করেছেন। নেটে অনুশীলনের সময় মুস্তাফিজকে কাছেই রাখেন এই লংকান গ্রেট।

Post a Comment

 
Back To Top